Continue Shopping Order Now
Parenting

আমার আদিয়ান ও তার এডিএইচডি শেষ পর্ব

আমার আদিয়ান ও তার এডিএইচডি  শেষ পর্ব

আমার আদিয়ান ও তার এডিএইচডি


অনেক তো স্ট্রাগল,স্ট্র্যাটেজি,সিস্টেম ইত্যাদির কথা বললাম। এবার একটা ছোট্ট সফলতার গল্প বলি।

আদিয়ানের যেহেতু মনে রাখায় প্রবলেম ছিল তাই আশাই ছেড়ে দিয়েছিলাম ওর কখনো কোন রেজাল্টই ভালো হবেনা। কিন্তু আলহামদুলিল্লাহ্, ইয়ার টু'তে ওর ক্লাশ টিচার 'রিহান শাহাল' খুব ভালো গাইড করেছিলেন ওকে। আমি যা করতে পারিনি তাই তিনি করে দেখিয়েছিলেন। প্রচুর মোটিভেশন আর প্রপার গাইডেন্স আর ট্যাকনিকস দিয়ে আদিয়ানকে ভাল ভাবে মনোযোগী হতে সাহায্য করছিলেন। আল্লাহ্ তাকে উত্তম প্রতিদান দিন,ইনশাআল্লাহ্. ইয়ার থ্রিতে একটা পরীক্ষা হয় এই দেশে, NAPLAN নামে. এই পরীক্ষা টায় বাচ্চাদের বয়স অনুযায়ী মেধার একটা জাজমেন্ট হয় বলা যায়। আদিয়ানকে ঐ পরীক্ষার জন্য কি পড়াবো কিছুই বুঝতে পারছিলাম না। স্কুলে জিজ্ঞাসা করলে বলতো আমরা প্রিপেয়ার করছি তুমি চিন্তা করোনা। রিভিশন করিও শুধু। কি রিভিশন করাব, ছেলে তো বাসায় এসে বলেই না সে কি করেছে ক্লাসে। যাই হোক, যথা সময় পরীক্ষা হলো। কিন্তু একটা বিপত্তি ঘটলো। প্রিন্সিপ্যাল কিছুতেই খাতা দেবেন না জমা বোর্ডে। উনি বললেন যে আদিয়ানের হাতের লেখা ভালোভাবে বোঝা যায়না, শুধু শুধু খাতায় জিরো আসবে। মনটা খারাপ হলো। তারপর আদিয়ানের বাবাকে স্কুলে পাঠালাম রিকোয়েস্ট করার জন্য যেন প্লিজ খাতাটা দেয় এটলিস্ট আমরা বুঝি ও আসলে কি পারে? প্রিন্সিপ্যাল কথা রেখেছিলেন,তবে উনি ইংলিশ রাইটিং পেপার টা জমা দিলেন না। কারন সেটায় কিছুই লেখা বোঝা যায়না। তারপরও শুকরিয়া আল্লাহর কাছে যে উনি দিলেন। যথা সময়ে যেদিন রেজাল্ট হলো ছেলে একটা খাম নিয়ে এসে আমার হাতে দিলো আর বললো তোমার জন্য সারপ্রাইজ আছে! আমি বুঝলাম NAPLAN রেজাল্ট। খাম খুলে আমার চোখ ছানাবড়া! আমার ছেলে প্রতিটা পরীক্ষায় ব্যান্ড ৬ পেয়েছে যা কিনা সর্বোচ্চ ব্যান্ড এই পরীক্ষায়! আমি এমন হতভম্ব জীবনে হইনি! পাগলের মতো সবাইকে ফোন দিতে লাগলাম আসলেই এটা কিনা বোঝার জন্য। সবাই খুশি হয়েছে.আমি এখনো কিছু বুঝতে পারছিনা, কিভাবে সম্ভব?! স্কুল থেকেও ফোন এলো. টিচার কনগ্রাচুলেট করলেন। অদ্ভুত একটা ভালো লাগায় মন টা ভরে গেল,আলহামদুলিল্লাহ! এবং তখন সবচেয়ে প্রয়োজনীয় উপলব্ধি যা হলো তাতে বুঝলাম,একজন এডিএইচডি বাচ্চাকে প্রপার গাইডেন্সে সে অবশ্যই ভালো করবে। যদিও আমি কোন গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারিনা এই রেজাল্ট লেভেল সবসময় একই থাকবে। আল্লাহর কাছে সত্যিই অনেক অনেক শুকরিয়া আমি ঐদিনটি দেখতে পেরেছিলাম।

       এরপর থেকে আমি কখনো আর আদিয়ানকে কখনো আন্ডারএস্টিমেট করিনি। হ্যা,সে আমাকে পরে হতাশ করেছে অনেকবার কিন্তু আমি গায়ে মাখিনি. কারন আশা ই তো সব। আশা রাখি ছেলেটা ভালো কিছুই করবে ভবিষ্যতে আল্লাহ্ যদি চান। মেডিকেশন এখনো চালিয়ে যাচ্ছি সাথে মোটিভেশন ও। কোন কিছুই বাদ দিচ্ছি না। আগের থেকে আলহামদুলি্লাহ্, তার মনোযোগ বেড়েছে কিছুটা। হাতের লেখাও ভালো হয়েছে! সাথে কিন্তু আদিয়ানের খাওয়া কমেছে, ওজন ও কমেছে। যা কিনা চোখে পড়ে। কি করা যাবে, এটাই বোধহয় ব্যালেন্স। কিছু পেলে কিছু তো হারাতেই হবে।

    একজন এডিএইচডি সন্তানের মা হিসেবে এই লেখায় শেষ বারের মতো সব প্যারেন্ট কে অনুরোধ করছি, যখব কোন লক্ষন দেখবেন প্লিজ ডাক্তারের সাহায্য নিন। তাদের পরামর্শ মেনে চলুন। বাসার পরিবেশ টা বাচ্চাটির জন্য গ্রহনযোগ্য করে তুলুন। এডিএইচডি কখনো ভালো হয়না ঠিকই, কিন্তু আপনাদের বাবা মা'দের সার্বিক চেস্টায় সেটির লেভেল কমবে অবশ্যই। কখনোই মনে করবেন না এটা কোন শাস্তি স্বরুপ কিছু। এটা কে শুধু নিজের ধৈর্য্য বাড়ানোর হাতিয়ার হিসেবে ধরে নিন। রুটিন মেইন্টেইন করুন। ইনশাআল্লাহ্ কঠিন সময়টা একসময় সহজ হয়ে যায়। জীবনের সব কিছুই স্বাভাবিক হয়ে যায়। আরেকটা বিষয় খেয়াল করবেন, আপনার বাচ্চা কোন কাজ টি করতে সবচেয়ে পছন্দ করছে? সেটাতে গাইড করুন বেশি বেশি। এডিএইচডি বাচ্চা গুলো অনেক সময় এক্সট্রিমলি ট্যালেন্টেড হয়. হয়তো আপনার বাচ্চা অন্য অনেক ব্রিলিয়ান্ট ইন্জিনিয়ার বা ডাক্তার হতে পারবে কিনা তাতো জানিনা তবে ভালোবেসে সে যা করবে তাতে সে অবশ্যই ভালো করবে ইনশাআল্লাহ্। বিশ্বাস করুন,আল্লাহ্ তাদের কে সেই ক্ষমতা দিয়েছে।

Michale Phelps কে মনে আছে?! বিখ্যাত আমেরিকান সাতারু। তার কিন্তু সিভিয়ার লেভেলের এডিএইচডি ছিল যা কিনা ৯বছর বয়সে ধরা পড়েছিল। সৃষ্টিকর্তা দেখেন তাকে কেমন সম্মানের জায়গায় পৌছিয়ে দিয়েছেন, সুবহানআল্লাহ! আমার চেয়ে অবশ্য আদিয়ানের বাবা অনেক বেশি কনফিডেন্ট এই ব্যাপারে। তার খুব শক্ত বিশ্বাস আদিয়ান ভালো কিছু করবে জীবনে ইনশাআল্লাহ্। আমি হাসি। সুযোগ পেলে Google/YouTube/Facebook সার্চ করি এডিএইচডির খুটিনাটি,ব্যক্তিত্ব আর সাফল্যময় গল্প গুলো পড়তে। Karwin Rae সবকিছু দেখি আমি। ওর লাইফ,সংসার. আশা জাগাই মনে। মানুষ তো আশা নিয়েই বাচে। ছেলেটা আমার বলে, মা, আমি Formula 1 চালাবো! বড় সেই কাপটা বাসায় নিয়ে আসবো। গতবছর তো ওকে ওর সবচেয়ে প্রিয় বন্ধুর সাথে দেখতেও নিয়ে গিয়েছিলাম রেস কার শো। কি যে খুশি হয়েছিল সেদিন। চোখে মুখে ওর নিজের স্বপ্নের ঝলক দেখতে পেয়েছিলাম। হোক না একটু বিপদজনক স্বপ্ন; ওর স্বপ্ন বলে কথা, সাপোর্ট না করি কি করে?!

ভালো থাকবেন সবাই... লেখার ভুলত্রুটি ক্ষমা করবেন. আমাদের জন্য দুয়ার অনুরোধ রইল।

জাজাকআল্লাহু খাইরান..💕💕 


***এই সাইটের লেখার কপিরাইট মডেস্ট কালেকশন এর। লেখা আপনি অবশ্যই শেয়ার করতে পারেন, সেটা আমাদের সাইট থেকে লিংক শেয়ারের মাধ্যমে। কিন্তু কপি পেস্ট করে নিজের প্রোফাইল বা পেইজে দেয়ার অনুমতি আমরা দিচ্ছিনা। আল্লাহ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দিন।


Continue Shopping Order Now