Continue Shopping Order Now
Parenting

আমার আদিয়ান ও তার এডিএইচডি পর্ব-৯

আমার আদিয়ান ও তার এডিএইচডি  পর্ব-৯

আমার আদিয়ান ও তার এডিএইচডি


আদিয়ানের মেডিসিন শুরু করার আগে নিজের সাথে পরিকল্পনা করে নিলাম কিভাবে কি করা যায় যেহেতু ডাক্তাররা একটা গাইড লাইন দিয়ে দিয়েছিলেন। আমি মা হিসাবে যা যা ঠিক করলাম:

১) ওর জন্য একটা প্রপার রুটিন সেট করতে হবে এবং সব ওয়ার্কআউটেই টাইম প্ল্যানিং এ ১০ থেকে ১৫ মিনিট বেশি সময় এড করে রাখতে হবে।

২) যেহেতু ঘুমের সমস্যা হতে পারে,স্কুল হোমওয়ার্ক কমপ্লিট হোক না হোক রাত ৯:০০টার মধ্যে ঘুমাতে যেতে হবে।

৩) খাওয়ার পরিমান যেহেতু কমে যাবে অবশ্যই যা খাবে তাতে ব্যালেন্সড নিউট্রিশন যেন থাকে তা নিশ্চিত করতে হবে। এমনিতেই আদিয়ান খাবারের ব্যাপারে অনেক খুতখুতে ছিল। সব কিছু খেতে চাইতো না। তবে মজার ব্যাপার হলো মুরগির মাংসের সাথে আপনি যা ই মেখে দিবেন সে খাবে। আর মুরগির মাংস, ডিম, গরুর মাংস, কলিজা, বাদাম, শিম ইত্যাদি এগুলো কিন্তু এডিএইচডির নিউট্রিশন ব্যালেন্সে ভালো ভুমিকা রাখে। এখন ই একটা কথা মনে হলো; যা বলা খুব জরুরি মনে করছি।

গর্ভবতী মায়েরা অনেক সময় পেটের বাচ্চার কথা ভালো হবে মনে করে অনেক সময় প্রচুর সি ফুড বা সামুদ্রিক মাছ খেতে চান। অবশ্যই খাবেন; তবে প্লিজ একটু পরিমান কমিয়ে খাবেন। ওমেগা-২ এবং ওমেগা-৩ সামুদ্রিক মাছে বেশি পরিমানে থাকে যা কিনা এডিএইচডির মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। তাই যদি মাঝারি সাইজের নদীর যে কোন মাছ বা ছোট মাছ বেশি খেতে পারেন তাহলে বেশি ভালো হবে।

৪) ব্যক্তিগতভাবে আমি নিজে খুব তাড়াতাড়ি রেগে যাই। নিজের সাথে প্ল্যান করলাম এখন আর যাই হোক আদিয়ানের সাথে সহজে রেগে যাওয়া যাবেনা।

৫)ভালো হোক মন্দ হোক,যে কোন ব্যাপারের সিদ্ধান্ত টা আগে ওকেই নিতে দিতে হবে। ওর পছন্দ যে গুরুত্ব দিচ্ছি তা বুঝতে দিতে হবে।

৬) খেলাধুলা করতে দিতে হবে। ওকে আমার বুঝাতে হবে ওর বন্ধু প্রয়োজন। প্রচন্ড রকম স্পেস দিতে হবে যা ও করতে চায় তাই যেন করতে পারে একমাত্র যা বিপদজনক সেটা ছাড়া।

৭) প্ল্যান করলাম ঘরের টুকটাক কাজে ওকে ইনভলভ করা শুরু করবো। আস্তে আস্তে ভ্যাকুয়াম করা, বই পত্র গোছানো, টুকটাক ঝাড়পোছ করা, জানালা মোছা, ওর খেলনা গুছানো,সেগুলো স্যানিটাইজ করা, মেহমান এসে চলে গেলে আবার সব কিছু গুছানো ইত্যাদি ব্যাপারগুলো ওকে করতে দেওয়া শুরু করলাম।

৮) আমি রিস্ক নিতে চাইলাম না, তাই সমস্ত সুগারী স্ন্যাকস যেমন:চকলেট,চিপস,কোক ইত্যাদি যা বাসায় আগে অহরহ আনা হতো সেগুলো আনা অনেক কমিয়ে দিলাম। এখন চিপস আর কোক আমার বাসায় পাবেননা বললেই চলে। আসলে এগুলো খেলে যে এডিএইচডির মাত্রা বেড়ে যাবে তা আমি ১০০% নিশ্চিত না। তবে যে কোন সুগারের মাত্রাতিরিক্ততা যে কোন মানুষকেই হাইপার করে বেশি, আর ঘুম কমিয়ে দেয়। তাই রিস্ক নিতে চাইলাম না। খুব ভালো হতো যদি ব্ল্যাক কফিটা খেতে দিতে পারতাম। কিন্তু আদিয়ান যেহেতু ছোট তাই ঐবয়সে এটা দেওয়া একটু অসম্ভব। ভেবে রেখেছি ১৩/১৪ বছর বয়সে দেওয়া শুরু করবো। ব্ল্যাক কফি নাকি অনেক হেল্প করে এডিএইচডি মেইন্টেইনে।

৯)মাইন্ড সেট করলাম.. যেহেতু সে এমন অনেক আচরন করবে যা মেনে নেওয়া যাবে না তাতে শান্ত থাকতে হবে। আর অনেক বেশি বোঝাতে হবে।

১০) আদিয়ান অনেক সময়ই জানতে চায় ওর সাথে এমন কেন হচ্ছে? মানে, অন্য বাচ্চাদের সাথে ওর যে একটু হলেও তফাত আছে এটা ও নিজেই বুঝেছে। ঠিক করলাম, ওকে জানাবো তোমার এডিএইচডি আছে! তারপর যখন জানতে চাইবে ওকে সব খুলে বলবো। মনে হয়েছিল, তাহলে আমি যখন যা ওর সাথে করছি ও বুঝবে আমি কেন করছি।


যথাসময়ে মেডিসিন স্টার্ট করলাম। এবং খেয়াল করলাম ওর কিছুটা বমি আর ডায়রিয়া শুরু হয়েছে। সাথে লক্ষ্য করলাম অহেতুক কান্নাকাটি যেন বেড়ে গেল। বুঝলাম, সাইড ইফেক্ট। কিন্তু টের পেয়েছিলাম আগে থেকে বোধহয় কনসেন্ট্রেশন বেড়েছে একটু। তারপরও ডাক্তার কে জানালাম। তিনি মেডিসিন হাফ করে দিতে বললেন এবং আবার জানাতে বললেন। বমি বন্ধ হলো, ডায়রিয়াও ।কিন্তু অন্যান্য বিষয় গুলো একই থেকে গেল।

এমন ভাবে চলতে লাগলো মেডিসিন অদলবদল। ২/৩ টা মেডিসিন বদলে শেষ পর্যায়ে স্থির হলাম Strattera তে, যা কিনা ১০ mg থেকে শুরু করে আস্তে আস্তে ৪ সপ্তাহ পর পর ৫ mg করে বাড়িয়ে দিতে হবে। এই ওষুধ টার উপাদানের নাম atomoxetin hydrocloride.


এই মেডিসিন টি কিভাবে কাজ করা শুরু করে জান্নাচ্ছি পরের পর্বে...


চলবে... 

প্রথম পর্বের লিংক https://www.modestbd.com/blog/life-with-adhd-attention-deficit-hyperactivity-disorder



***এই সাইটের লেখার কপিরাইট মডেস্ট কালেকশন এর। লেখা আপনি অবশ্যই শেয়ার করতে পারেন, সেটা আমাদের সাইট থেকে লিংক শেয়ারের মাধ্যমে। কিন্তু কপি পেস্ট করে নিজের প্রোফাইল বা পেইজে দেয়ার অনুমতি আমরা দিচ্ছিনা। আল্লাহ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দিন।



Continue Shopping Order Now